Home Sports “শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সাফল্যের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী” মুমিনুল

“শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সাফল্যের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী” মুমিনুল

6
0

করোনা মহামারির পর প্রথম শ্রীলঙ্কায় সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। সেখানে টেস্ট সিরিজ খেলবে টাইগাররা। সেই সিরিজ নিয়ে শ্রীলঙ্কা আগেই হুমকি দিয়ে রেখেছে। পেসার দিয়ে আক্রমণ করার পরিকল্পনা আঁকছে লঙ্কানরা।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক। বলেন, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সাফল্যের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। আমাদের ব্যাটিং ও বোলিং বেশ শক্তিশালী এবং দুই বিভাগেই আমরা ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদী। টেস্টে আমাদের ফলাফল খুব বেশি ভালো নয়। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট সিরিজে আমরা ভালো করেছি, যা আমাদের শ্রীলঙ্কায়ও অব্যাহত রাখতে আত্মবিশ্বাস যোগাচ্ছে।

নিজ মাঠে আসন্ন তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজে স্পিনের পরিবর্তে পেস শক্তি দিয় বাংলাদেশকে ঘায়েল করার হুমকি দিয়ে রেখেছেন শ্রীলঙ্কার প্রধান নির্বাচক ও দলীয় ম্যানেজার অসান্থা ডি মেল। নিজেদের কন্ডিশনে টেস্ট ম্যাচ জিততে সর্বদা স্পিনের উপর নির্ভর করে আসছে শ্রীলঙ্কা। প্রতিপক্ষের স্পিন বোলিং গভীরতা ও সত্যিকার পেসের বিপক্ষে তাদের ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতা বিবেচনায় আসান্থা মেল ধারণা করছেন যে, বাংলাদেশের বিপক্ষে গতির উপর নির্ভর করতে হবে। অবশ্য লঙ্কান দলে ৩৮ বছর বয়সী স্পিনার দিলরুয়ান পেরেরারও থাকতে পারেন।

সম্প্রতি সানডে আইসল্যান্ডকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মেল বলেন, আমরা পেস দিয়ে তাদের হারাতে চাই। স্পিন দিয়ে নয়। বাংলাদেশের স্পিন অ্যাটাক দুর্দান্ত। তবে আমাদের ভালো মানের পেস অ্যাটাক রয়েছে। তাই আমাদের পেস শক্তিতে নির্ভর করা উচিত। আমরা স্কোয়াডে পাঁচজন পেসার রাখতে পারি, কোচরা এমনটাই ভাবছেন।

তবে শ্রীলঙ্কা কি বলছে বা কি পরিকল্পনা করছে, তা নিয়ে মোটেও ভাবতে চান না মুমিনুল। তিনি নিজ দলের খেলোয়াড়দের উপর বিশ্বাস রাখতে চান, শ্রীলঙ্কা সফরে আমরা ভালো পারফরমেন্স করতে পারি, দলের সকলেই এটা বিশ্বাস করে। সবারই আত্মবিশ্বাস রয়েছে। অধিনায়ক হিসেবে আমি নিশ্চিত যে, শ্রীলঙ্কা থেকে আমরা ভালো ফল নিয়ে আসব। শ্রীলঙ্কা যা বলছে, তা আমার মাথাব্যাথার বিষয় নয়। তারা অবশ্যই তাদের পরিকল্পনা করবে কিন্তু আমাদের সেরা খেলাটা নিশ্চিত করতে হবে। নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে আমাদের ভালো সুযোগ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here