Home More স্বাস্থ্য ও পরিবেশকে প্রাধান্য দেয়ার অঙ্গীকার ৬ মেয়রের

স্বাস্থ্য ও পরিবেশকে প্রাধান্য দেয়ার অঙ্গীকার ৬ মেয়রের

6
0

সিটি ও পৌরসভার মেয়ররা স্বাস্থ্য ও পরিবেশকে প্রাধান্য দিয়ে টেকসই এবং আর্থ-সামাজিক ন্যায়বিচার সম্পন্ন শহর গড়ে তোলার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেছেন। দু’দিনব্যাপী ইকোসিটি স্যাটেলাইট কনফারেন্স ঢাকা ২০২০ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) মেয়রগণ এ অঙ্গীকার করেন।

তারা বলেন, উন্নয়ন পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্তিমূলক নগর ব্যবস্থাপনার বিকল্প নেই। কিন্তু কর্পোরেশন বা পৌরসভার এখতিয়ার এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় ও সদিচ্ছা না থাকায় প্রায় সকল কার্যক্রমই ব্যহত হচ্ছে। মেয়রগণ কর্পোরেশন বা পৌরসভার স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করণের দাবি তুলে ধরেন।

সমাপনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ইস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স এর প্রেসিডেন্ট ড. আকতার মাহমুদ এর সভাপতিত্বে অতিথি আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনার সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম, গাংনী পৌরসভার মেয়র মো. আশরাফুল ইসলাম।

প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব এবং সম্মেলনের ঘোষণা পত্র পাঠ করেন হেলথব্রীজ কানাডা এর আঞ্চলিক পরিচালক দেবরা ইফরইমসন এবং সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন ডাব্লিউবিবি ট্রাস্ট এর নির্বাহী পরিচালক সাইফুদ্দিন আহমেদ।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব প্রবন্ধ উপস্থাপনায় বলেন, নগর পরিকল্পনায় শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য এবং পরিবেশকে প্রাধান্য দেয়া আবশ্যক। সেক্ষেত্রে সকলের জন্য সামর্থ্য অনুযায়ী বাসস্থান, যাতায়াত ব্যবস্থায় হাঁটা এবং সাইকেলকে প্রাধান্য দেয়া, বর্জ্য ব্যবস্থপনা, জলাধার সংরক্ষণ ও সবুজায়নকে প্রাধান্য দেয়া প্রয়োজন।

মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, পরিবেশকে প্রাধান্য দিয়ে অবকাঠামো উন্নয়নে ২০২০-২১ অর্র্থবছরে ৫০৪ কোটি ৩১ লাখ ২২ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। এতে অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন, পার্ক, ধর্মীয় উপসানালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন এবং কর্পোরেশনের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার উপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, রংপুর সিটি করপোরেশনকে দৃষ্টিনন্দন নগরীতে পরিণত করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আগামী ৩ বছরের মধ্যে রংপুরকে বাসযোগ্য নগর হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। ইতিমধ্যে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা হচ্ছে।

মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম বলেন, আমাদের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে প্রাণ-প্রকৃতিকে প্রাধান্য দিয়ে পরিকল্পনা গ্রহন করা উচিত। মানিকগঞ্জ পৌরসভার ২০২০-২১ অর্থবছরের ১৩৩ কোটি ৭৫ লক্ষ ৭৬ হাজার ১৬৮ টাকার বাজেট ঘোষনা করা হয়েছে। কর্মপরিকল্পনায় পৌর এলাকার খাল, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, রাস্তাঘাটের উন্নয়নমুলক বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালিত হবে।

মেয়র মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমাদের শহরে মশক নিয়ন্ত্রণ, টেকসই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, জলাবদ্ধতা নিরসন, রাস্তাাঘাট আধুনিককরণ,বাজার ব্যবস্থাপনা সকলের ব্যবহারের উপযোগী করতে কার্যক্রম চলমান। বিশেষ করে খাল পুনঃরুদ্ধানে আমরা বদ্ধপরিকর।

দেবরা ইফরইমসন সম্মেলনের ঘোষণা পত্রে বলেন, বাসযোগ্য নগর গড়তে হেলথ প্রমোশন ফাউন্ডেশন গড়ে গঠন, যাতায়াত ব্যবস্থায় হাঁটা এবং সাইকেলকে প্রাধান্য দেয়া, অন্তর্ভুক্তি করন, একবার ব্যবহৃত প্ল্যাস্টিক নিয়ন্ত্রণ, স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর পণ্যে ওপর সারচার্জ আরোপ, বর্জ্য ব্যবস্থপনা, জলাধার সংরক্ষণ ও সবুজায়নকে প্রাধান্য এবং সর্বপরি আগামী প্রজন্মের জন্য একটি বাসযোগ্য নগর তোলার আহবান জানানো হয়।

দুই দিনব্যাপী সম্মেলনে দেশের ৫০টি শহর সম্পৃক্ত হয়েছিল। সেই সাথে কানাডা, ভারত, নেপাল ও ভূটানের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনে ৩টি প্ল্যানারি সেশন, ৯টি বিষয়ভিত্তিক প্যারালাল বা সমান্তরাল সেশন, ২টি বিশেষ সেশন আছে। এতে ২৩টি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা, ৭টি পোস্টার উপস্থাপনা, এবং ৪১ জন অতিথি আলোচক ও দেশের বিভিন্ন শহরের ৫ জন মেয়র উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here