Home More ৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ স্থগিত

৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ স্থগিত

5
0

নারায়ণগঞ্জ শহরে ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের প্রত্যেক পরিবারকে প্রাথমিকভাবে ৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ স্থগিত করে দিয়েছেন চেম্বার আদালত।

একইসঙ্গে আগামী ১ ডিসেম্বর এ বিষয়ে করা আবেদনের ওপর আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে রবিবার (১৩ সেপ্টেম্বর) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান এ আদেশ দেন।

এদিন আদালতে তিতাস গ্যাসের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার মেজবাহুর রহমান, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও রিট আবেদনের পক্ষে ছিলেন তৈমুর আলম খন্দকার।

আদেশের পর ব্যারিস্টার মেজবাহুর বলেন, ‘আমরা শুধু হাইকোর্টের অন্তর্বর্তীকালীন আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল করি। এতে ৫ লাখ টাকা দেয়ার আদেশের অংশ স্থগিত চেয়েছিলাম। আদালত স্থগিতাদেশ দিয়েছেন।’

এর আগে গেল বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) এ-সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় হতাহতদের প্রত্যেক পরিবারকে প্রাথমিকভাবে ৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ দেন।

ওইদিন আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকার। তার সঙ্গে ছিলেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার মার ই-য়াম খন্দকার।

ওইদিন আদেশে আদালত বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষকে হতাহতদের প্রত্যেকের পরিবারের জন্য প্রাথমিকভাবে ৫ লাখ টাকা নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। জেলা প্রশাসক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে এই টাকা বিতরণ করবেন বলেও আদেশ দেন হাইকোর্ট।

গেল ৭ সেপ্টেম্বর হতাহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে জনস্বার্থে একটি রিট আবেদন নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মার ই-য়াম খন্দকার।

রিটে বিদ্যুৎ ও জ্বারানি মন্ত্রণালয়ের সচিব, তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়।

এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর বিস্ফোরণের ঘটনায় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন আদালতের নজরে আনেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে এসব প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হলে আদালত প্রতিবেদনগুলো পর্যালোচনা করে আইনজীবীকে রিট আবেদন করতে বলেন।

গেল ৪ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ৯টার দিকে ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ এসি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এরপর দগ্ধ ৩৭ জনকে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এ পর্যন্ত ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। একজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। বাকি ৫ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here