Home More রাজশাহীতে ফুটপাত ভাড়া দিয়ে রেখেছে ব্যবসায়ীরা

রাজশাহীতে ফুটপাত ভাড়া দিয়ে রেখেছে ব্যবসায়ীরা

3
0

রাজশাহীর মহানগরীর সাহেব বাজার এলাকার ফুটপাত ভ্রাম্যমাণ দোকানদের ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করছেন দোকান মালিকরা। প্রতিদিন ভাড়া দিয়ে দোকান প্রতি গড়ে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে। এসব ফুটপাত দখলমুক্ত ও ট্রেড লাইসেন্সবিহীন দোকানদের জরিমানা করছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে এ উচ্ছেদ অভিযান ও ট্রেড লাইসেন্সবিহীন দোকানদারকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করতে গিয়েই রাসিকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সমর পালের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন কাপড় ব্যবসায়ীরা। এক পর্যায়ে সমর পাল সন্ধ্যার দিকে অভিযান পরিচালনা বন্ধ করে ফিরে আসেন।

রাজশাহীর মহানগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্ট থেকে মনিচত্বর পর্যন্ত হেঁটে যেতে পাঁচ মিনিট সময় লাগার কথা। অথচ এই স্থানের সব ফুটপাতগুলো দখল করে ভ্রাম্যমাণ দোকান বসানোর কারণে নগরবাসী হেঁটে চলাচলের রাস্তা পান না। ফুটপাত দখল থাকার কারণে জিরোপয়েন্ট থেকে মনিচত্বরে হেঁটে যেতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট সময় লেগে যায়। তা-ও সুস্থভাবে হাঁটা যায় না। একেক সময় একেক দোকানের সাথে ধাক্কা লাগে। যানবাহনে সাথে দুর্ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জিরোপয়েন্ট থেকে মনিচত্বরের ফুটপাতের পাশের দোকানগুলো প্রতিদিন ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার ভিত্তিতে তাদের দোকানের সামনের ফুটপাতগুলো ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীদের ভাড়া দেয় তারা।

এসব ফুটপাত দখলমুক্ত করতে গিয়ে ও ট্রেড লাইসেন্সবিহীন দোকানদারকে অভিযানে পরিচালনা করতে গিয়েই রাসিকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সমর পালের ওপর চড়াও হন ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিটি কর্পোরেশনের ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে রাজশাহী মহানগরীর সাহেববাজার এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও ট্রেড লাইসেন্স বিহীন দোকানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় সাহেব বাজার কাপড়পট্টি এলাকার কুমকুম শাড়ি ঘরে ট্রেড লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় মালিক মো. নূরুল ইসলামকে ৬ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এরপর পার্শ্ববর্তী দোকান হৃদয় হ্রদি বস্ত্র বিতানে ট্রেড লাইসেন্স চেক করতে গেলে মার্কেটের দোকান মালিক ও কর্মচারীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে দোকান মালিক ও কর্মচারীরা ম্যাজিস্ট্রেট ও তার সাথে থাকা পুলিশের গাড়িকে ঘেরাও করে। এ সময় ম্যাজিস্টেটের সঙ্গীয় ফোর্স ও দোকান মালিক কর্মচারীদের সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও হাতাহাতি হয়।

সমর পাল জানান, গত কয়েকদিন ধরেই আমরা ফুটপাত দখলমুক্ত করাসহ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করে আসছি। অভিযানে দোকানদারদের ট্রেড লাইসেন্স আছে কি না তা-ও পরীক্ষা করা হচ্ছিলো। ট্রেড লাইসেন্স না থাকার কারণে বৃহস্পতিবার কয়েকজন ব্যবসায়ীকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। কাপড়পট্টিতে এরকম অভিযান পরিচালনা করার সময় কাপড়পট্টি ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. শামিম কয়েকজন ব্যবসায়ী নিয়ে এসে আমার সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। পরে তাদের লোকজন সব ব্যবসায়ীদের জড়ো করে হৈ-হট্টগোল ও বিশৃঙ্খলা তৈরি করি। এক পর্যায়ে অভিযান বন্ধ করে জরিমানার টাকা আদায় করে চলে এসেছি।

তিনি জানান, ব্যবসায়ীরা প্রধানত ফুটপাত দখলমুক্ত হলে তাদের অবৈধ উপার্জনের পথ বন্ধ হয়ে যাবে সেইজন্যই এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এছাড়া ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করার কথা থাকলেও তারা ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই ব্যবসা করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here